বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিবৃতিতে নারী বিক্ষোভকারীদের ওপর তালেবানের চড়াও হওয়ার সমালোচনা করেন জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনের মুখপাত্র রাভিনা শামদাসানি। তিনি বলেন, ‘যাঁরা শান্তিপূর্ণ সমাবেশ করছেন এবং যেসব সাংবাদিক এসব বিক্ষোভের সংবাদ সংগ্রহ করছেন, তাঁদের নির্বিচারে আটক করছে তালেবান। তাঁদের ওপর দমনপীড়ন বন্ধ করতে আমরা তলেবানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছি।’

জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী, সাম্প্রতিক বিক্ষোভগুলোয় তালেবানের হাতে চারজন নিহত হয়েছে। তাদের মধ্যে এক কিশোরও রয়েছে। বিক্ষোভকারীদের ওপর লাঠিপেটা, বেত্রাঘাত, এমনকি গুলিও চালানো হয়েছিল বলে সংস্থাটির বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

আফগানিস্তানে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠনের পর থেকে নানা বিষয়ে শক্ত অবস্থান নিয়েছে তালেবান। গত বুধবার দেশটিতে তারা অনুমতি ছাড়া কোনো সমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। এর এক দিন আগেই আফগানিস্তানের টেলিযোগাযোগ কোম্পানিগুলোকে কাবুলে মোবাইল ইন্টারনেট বন্ধের আদেশ দেওয়া হয়।

জাতিসংঘের বিবৃতিতে সাংবাদিকদের ওপর চালানো হামলার সমালোচনাও করা হয়েছে। কাবুলে বিক্ষোভের সংবাদ সংগ্রহের সময় দুই সাংবাদিক বেদম মারধরের শিকার হন তালেবান সদস্যের হাতে। তাঁদের শরীরে আঘাতের বীভৎস ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোয় ছড়িয়ে পড়ে।

এদিকে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর থেকে নারী অধিকার রক্ষার প্রতিশ্রুতি দিয়ে এলেও সদ্য ঘোষিত তালেবান সরকারে রাখা হয়নি কোনো নারী সদস্যকে। এ নিয়ে সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। সবকিছু মিলিয়ে পশ্চিমা দেশগুলো তালেবানের অন্তর্বর্তীকালীন সরকারকে সমর্থন দেয়নি।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন