বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রয়টার্স জানায়, মেশিনগান হাতে বিনোদন পার্কে তালেবান যোদ্ধাদের ফুরফুরে মেজাজে সময় কাটাতে দেখা যায়। এ সময় কেউ পার্কে বসে চা পান করেন। কেউ স্টল থেকে স্ন্যাক্স কিনে খান। কেউ কেউ পার্কের রাইডে চড়েন। কাউকে কাউকে রাইডে চড়ার জন্য সারিবদ্ধভাবে অপেক্ষা করতে দেখা যায়।

ময়দান ওয়ারদাক প্রদেশের ২৪ বছর বয়সী হালিমি বলেন, ‘কাবুলে এসে, প্রথমবারের মতো কারগা পরিদর্শন করতে পেরে আমি বেশ আনন্দিত। লোকজন আমাকে, আমার সঙ্গীদের ভ্রাতৃত্বের বোধ নিয়ে স্বাগত জানিয়েছে।’

হালিমি তাঁর পুরো নাম প্রকাশ করতে রাজি হননি। তিনি আরও বলেন, ‘লড়াইয়ে অংশ নিতে পেরে আমরা গর্ববোধ করছি। এখন আমেরিকানরা চলে গেছে। এটাই এখন পর্যন্ত আমাদের পাওয়া সবচেয়ে আনন্দের বিষয়।’

default-image

হালিমি জানান, পার্কে এক চাচাতো ভাইয়ের সঙ্গে তাঁর দেখা হয়েছে। পিকনিকের মধ্য দিয়ে তাঁরা তালেবানের প্রত্যাবর্তন উদ্‌যাপন করেছেন।

তালেবান সদস্যদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন, যাঁরা কখনোই রাজধানী কাবুল সফর করেননি। গত ১৫ আগস্টের পর অনেকে প্রথমবারের মতো কাবুলে প্রবেশ করেন। তাঁদের অনেককে হয়তো শিগগির দেশের বিভিন্ন জায়গায় দায়িত্ব পালন করতে ফিরে যেতে হবে। তার আগে কোনো কোনো তালেবান সদস্য কাবুলের কারগা জলাধারের বালুময় তীরে অবস্থিত বিনোদন পার্ক পরিদর্শনের ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন। সেই ইচ্ছাপূরণে তালেবান যোদ্ধা হালিমি তাঁর কয়েক শ অনুসারীদের নিয়ে পার্কে বেড়াতে যান।

আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটের হামলায় তালেবান সরকার উৎখাত হয়। সরকার থেকে উৎখাত হলেও তালেবান আফগানিস্তানে সক্রিয় থাকে। তারা ২০ বছর ধরে লড়াই করে আবার আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে। ক্ষমতা দখলের প্রায় এক মাসের মাথায় গত সেপ্টেম্বর মাসের শুরুর দিকে তালেবান সরকার গঠনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়। বিদেশি সেনারা আফগানিস্তান থেকে চলে যাওয়ার পর দেশটির আইনশৃঙ্খলা রক্ষাসহ নানামুখী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় তালেবানকে ব্যতিব্যস্ত থাকতে হচ্ছে।

default-image

জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) ইতিমধ্যে আফগানিস্তানে একাধিক রক্তক্ষয়ী হামলা চালিয়ে তালেবানের মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠেছে।

সবশেষ গত শুক্রবার আফগানিস্তানের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের একটি মসজিদে আত্মঘাতী বোমা হামলা হয়। এতে প্রায় অর্ধশত মানুষ নিহত হন। এই হামলার দায় আইএস স্বীকার করেছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন