বিবৃতি অনুসারে, যে ২৬ জন ‘তাকফিরি সন্ত্রাসীকে’ গ্রেপ্তার করা হয়েছে, তাঁরা আজারবাইজান, তাজিকিস্তান ও আফগানিস্তানের নাগরিক।

ইরানসহ কয়েকটি দেশে ‘তাকফিরি’ শব্দটি দিয়ে উগ্র সুন্নি গোষ্ঠীকে বোঝানো হয়। এর মধ্যে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসও রয়েছে।

ইরানের গোয়েন্দা মন্ত্রণালয় বলছে, এই সন্ত্রাসীদের ফার্স, তেহরান, আলবোর্জ, কারমান, কোম ও রাজাভি খোরাসান প্রদেশের পাশাপাশি দেশটির পূর্ব সীমান্ত থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গোয়েন্দা মন্ত্রণালয় বলছে, যে ব্যক্তি হামলা চালিয়েছিলেন, তাঁকে তারা চিহ্নিত করেছে। তাঁর নাম সোবহান কমরউনি। তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। তিনি আহত হয়েছিলেন। পরে তিনি মারা যান।

মন্ত্রণালয় বলছে, ওই ব্যক্তি তাজিক নাগরিক। তিনি আবু আয়েশা নামে পরিচিত।
হামলার ঘটনায় দ্রুত ও কঠোর ব্যবস্থার অঙ্গীকার করেছিলেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি।