ইরানের কর্তৃপক্ষ কঠোরভাবে বিক্ষোভ দমন করছে। দেশটির বিশেষ বাহিনী রেভল্যুশনারি গার্ড গত সোমবার বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেওয়ায় দেশটির বিচার বিভাগের প্রশংসা করেছে। বিচার বিভাগের মুখপাত্র মাসুদ সেতায়েশি মঙ্গলবার বলেন, বাসিজ মিলিশিয়ার এক সদস্যকে হত্যার অভিযোগে পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

গত বুধবার ইরানে ‘স্টুডেন্ট ডে’ পালিত হয়। দেশটির মানবাধিকার গ্রুপগুলোর পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, বুধবার কর্মীরা কাজে যোগ না দিয়ে ধর্মঘট পালন করেন। শিক্ষার্থীরাও ক্লাস বর্জন করেন। দেশটির সাবেক সংস্কারপন্থী প্রেসিডেন্ট মোহাম্মাদ খাতামি এদিন বিক্ষোভকারীদের প্রতি সমর্থন জানান। তিনি বলেন, ‘নারী, জীবন, স্বাধীনতা’ একটি সুন্দর বার্তা, যা উন্নত ভবিষ্যতের আন্দোলন বোঝায়। স্বাধীনতা এবং নিরাপত্তাকে পরস্পরের বিরুদ্ধে নেওয়া উচিত নয়। একই দিনে বিক্ষোভে দমন-পীড়ন চালানোর ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন দেশটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনির বোন বাদরি হোসেইনি খামেনি। দেশবাসীর উদ্দেশে লেখা এক চিঠিতে তিনি ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ডের প্রতি বিক্ষোভকারীদের দিকে তাক করা অস্ত্র নামিয়ে ফেলার আহ্বান জানান।

বুধবার ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি তেহরান ইউনিভার্সিটি পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি সেখানকার শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশকে দাঙ্গার পরিবেশে পরিণত হতে না দেওয়ার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। যাঁরা বিক্ষোভ করছেন, তাঁরা দাঙ্গাবাজ। নিশ্চয়ই আপনারা বিক্ষোভকারী ও দাঙ্গাবাজের তফাত বোঝেন।’