আজকের ভাষণে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করার জন্য এনপিসির সদস্যদের ধন্যবাদ জানান সি চিন পিং। তিনি বলেন, ‘তৃতীয়বারের মতো আমি প্রেসিডেন্ট পদের দায়িত্ব পেলাম। সামনের দিকে এগিয়ে যেতে আমার সবচেয়ে বড় শক্তি হলো, দেশের মানুষের আস্থা। প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করার মধ্য দিয়ে আমার কাঁধে বড় দায়িত্ব চাপিয়ে দেওয়া হলো।’

বরাবরের মতো ভাষণে সির কণ্ঠে ছিল জাতীয়তাবাদী সুর। আধুনিক কালে ‘বিদেশি শক্তির’ হাতে চীন কীভাবে হয়রানির শিকার হয়েছে তা তুলে ধরেন তিনি। জাতিকে ‘অপমানের’ কবল থেকে রক্ষা করতে কমিউনিস্ট পার্টি কীভাবে নেতৃত্ব দিয়ে আসছে, তা–ও উল্লেখ করেন তিনি। সি বলেন, চীনের মানুষ এখন নিজেদের ভাগ্য নিজেরাই গড়ছেন।

রাশিয়া সফরে যেতে পারেন সি

এদিকে মার্কিন সংবাদমাদ্যম ওয়ালস্ট্রিট জার্নালের বরাতে রয়টার্স জানিয়েছে, আগামী সপ্তাহে মস্কো সফরে যেতে পারেন সি চিন পিং। এমনকি ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সঙ্গে ভিডিও কলে কথা বলতে পারেন তিনি।

রাশিয়া সফরে যেতে বহু আগেই সিকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তবে চীনের প্রেসিডেন্টের আসন্ন সফরের বিষয়ে জানতে চাইলে রয়টার্সকে কোনো তথ্য দেয়নি বেইজিং। জানতে চেয়ে সাড়া পাওয়া যায়নি ইউক্রেন থেকেও। আর ক্রেমলিন জানিয়েছে, ঘোষণা দিয়ে জানানোর মতো তাদের কাছে কিছু নেই।