বিজ্ঞাপন

সংক্রমণ শনাক্তে ভারতের অবস্থান বিশ্বে দ্বিতীয়। ওয়ার্ল্ডোমিটারসের তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্র গতকাল রাত পর্যন্ত ৩ কোটি ৩৮ লাখ ৮৪ হাজার ৬৩৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। মারা গেছে ৬ লাখ ৩ হাজার ৯১২ জন। একটি দেশে করোনা শনাক্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা এটাই সর্বোচ্চ। সংক্রমণ শনাক্তে বৈশ্বিক শীর্ষ তালিকায় যুক্তরাষ্ট্রের পরই ভারতের অবস্থান।

আর ১ কোটি ৬০ লাখ ৪৭ হাজার ৪৩৯ জনের করোনা শনাক্ত করে তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ব্রাজিল। ওয়ার্ল্ডোমিটারসের তথ্য অনুযায়ী, দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪ লাখ ৪৮ হাজার ২৯১ জন। সেই হিসাবে, করোনায় সবচেয়ে বেশি মৃত্যুর তালিকায় ভারতের আগে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের অবস্থান। আর ২ লাখ ২১ হাজার ৫৭৯ জন কোভিড-১৯ রোগীর মৃত্যুর মধ্য দিয়ে এ তালিকায় ভারতের পরে রয়েছে মেক্সিকো।

বিশ্বে বর্তমানে করোনার সংক্রমণের কেন্দ্র ভারত। ভারতে সংক্রমণের ‘বিস্ফোরণের’ জন্য করোনার ভারতীয় ধরনকে অনেকাংশে দায়ী করা হচ্ছে। করোনার ভারতীয় ধরনকে ‘উদ্বেগজনক’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। অবস্থা এমন যে, করোনা রোগীদের প্রয়োজনীয় অক্সিজেনের হাহাকার পড়ে গেছে ভারতের হাসপাতালগুলোয়।

করোনার পাশাপাশি মিউকরমাইকোসিস বা ‘ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের’ বিরুদ্ধে লড়তে হচ্ছে ভারতকে। দেশটিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সংক্রমণ বাড়ছে। এ সংক্রমণের জেরে বাড়ছে মৃত্যুও। এ পরিস্থিতিতে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সংক্রমণকে মহামারি ঘোষণা করতে রাজ্য সরকারগুলোকে চিঠি দিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এরই মধ্যে রাজস্থান ও তেলেঙ্গানা রাজ্য সরকার ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সংক্রমণকে মহামারি হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে। যদিও এ সংক্রমণে সবচেয়ে বেশি ভুগছে মহারাষ্ট্র।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন