বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়, ২০১২ সালে ভারতের বিমানবাহিনীতে হেলিকপ্টারটি যুক্ত হয়। সে বছর এ নিয়ে প্রতিবেদন করেছিল এনডিটিভি। এতে বলা হয়েছিল, দেখতে এ হেলিকপ্টার পুরোনোর মতো মনে হলেও কাজে বেশ আধুনিক। এই হেলিকপ্টারে যে রাডার রয়েছে, তা দিয়ে চারপাশের ৬০০ কিলোমিটারে আবহাওয়া সম্পর্কে জানা যায়। এতে ব্যবহার করা হয় দুটি ইঞ্জিন।

এমআই-১৭ভি৫ হেলিকপ্টারটি নজরদারি ও শত্রুর ওপর হামলা চালাতেও এটি ব্যবহার করা হয়। এ হেলিকপ্টার থেকে ক্ষেপণাস্ত্র পর্যন্ত নিক্ষেপ করা যায়। মেশিনগানের মতো অস্ত্রও ব্যবহার করা হয় হেলিকপ্টারটিতে।

দূরদূরান্তের পথ পাড়ি দিতে সক্ষম এই হেলিকপ্টার। এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, ১ হাজার ১০০ কিলোমিটার ওড়ার মতো জ্বালানি বহন করতে পারে হেলিকপ্টারটি। পাহাড়ি অঞ্চলে ওড়ার ক্ষেত্রে এটি বিশেষায়িত; যদিও গতকাল পাহাড়ি অঞ্চলেই এটি বিধ্বস্ত হয়েছে।

চার টন পর্যন্ত ওজন নিতে পারত এই হেলিকপ্টার। কোথায়ও আগুন লাগলে অগ্নিনির্বাপণে এটি ব্যবহার করা হতো। এটি তিন হাজার লিটার পানি বহন করতে পারে। ২০১৬ সালে উত্তরাখন্ডের বনে যখন আগুন লাগে, তা নির্বাপণে এটি ব্যবহার করা হয়েছিল।

এমআই-১৭ভি৫ হেলিকপ্টারের স্বয়ংক্রিয় ফ্লাইট ব্যবস্থা রয়েছে। অর্থাৎ কোনো ফ্লাইটের পরিকল্পনা করে সেই তথ্য পেনড্রাইভের মাধ্যমে হেলিকপ্টারের কম্পিউটারে প্রবেশ করানো যায়। এরপর অটো পাইলট ও কম্পিউটার মিলে যাত্রীকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে গন্তব্যে পৌঁছে দিতে পারে এমআই-১৭ভি৫। এ জন্য ভারতের সামরিক কর্মকর্তাদের পছন্দের হেলিকপ্টার এটি।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন