বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এক বিবৃতিতে ভারতের রাজস্ব গোয়েন্দা অধিদপ্তর জানিয়েছে, ইরানের বন্দর আব্বাস থেকে পাঠানো চালানটিতে মাদকদ্রব্য রয়েছে, এমন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে তারা অভিযান পরিচালনা করে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘যখন আমাদের কর্মকর্তারা চালানটি জব্দ করে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালান, তখন কনটেইনারের ভেতরে মাদকদ্রব্য পাওয়া যায়। এরপর হেরোইনের বিষয়টি নিশ্চিত হয়।’

ভারতের অন্ধ্র প্রদেশের ‘বিজয়ওয়ারা’ শহরের একটি কোম্পানি এই চালান আমদানি করেছিল। রাজস্ব গোয়েন্দা অধিদপ্তর জানিয়েছে, এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ইতিমধ্যে দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ছাড়া জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে বেশ কয়েকজন সন্দেহভাজনকে।

রাজস্ব গোয়েন্দা অধিদপ্তর জানিয়েছে, এ ঘটনায় আফগানিস্তানের নাগরিকদের জড়িত থাকার প্রমাণ পেয়েছেন তদন্তকারীরা। তাঁদের বিষয়ে তদন্ত চলছে।

জাতিসংঘের মাদক ও অপরাধবিষয়ক সংস্থার (ইউএনওডিসি) তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে সর্বোচ্চ পরিমাণ আফিম সরবরাহ করে আফগানিস্তান। বিশ্বে যত আফিমের কারবার হয়, তার প্রায় ৮০ শতাংশ আফগানিস্তানে উৎপাদিত হয়।

এ ঘটনার পরে ভারতের রাজধানী দিল্লি, আহমেদাবাদ, চেন্নাইসহ বিভিন্ন শহরে মাদকবিরোধী অভিযান চালানো হয়।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন