পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ সহযোগী হিসেবে পরিচিত পশ্চিমবঙ্গের মডেল-অভিনেত্রী অর্পিতা মুখোপাধ্যায়। গত শনিবার অর্পিতার কলকাতার একটি ফ্ল্যাট থেকে ২১ কোটি রুপি উদ্ধার করেন ভারতে আর্থিক কেলেঙ্কারি তদন্তের দায়িত্বে থাকা কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। এরপর পার্থ ও অর্পিতাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ চলার মধ্যে গতকাল বুধবার উত্তর কলকাতায় অর্পিতার আরেকটি ফ্ল্যাট থেকে ২৯ কোটি রুপি এবং স্বর্ণালংকার ও সোনার বার উদ্ধার করা হয়। ইডি কর্মকর্তাদের ভাষ্যমতে, অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের দুটি ফ্ল্যাট থেকে ৫০ কোটি রুপি এবং দুই কোটি রুপি দামের সোনা উদ্ধার করা হয়েছে।

পার্থ চট্টোপাধ্যায় গ্রেপ্তার হওয়ার পর তৃণমূল নেতারা ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির নেতাদের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছিলেন। দোষী প্রমাণিত না হওয়া পর্যন্ত পার্থ চট্টপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে না বলেও কেউ কেউ বলেছিলেন। গতকাল দ্বিতীয় দফায় অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের ফ্ল্যাট থেকে বিপুল পরিমাণ রুপি উদ্ধারের ছবি টেলিভিশনে সম্প্রচার হওয়ার পর অবস্থান বদলেছে তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্বের।

পার্থ চট্টোপাধ্যায় রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী থাকাকালে সরকারি স্কুলগুলোতে শিক্ষক এবং কর্মকর্তা–কর্মচারী নিয়োগে দুর্নীতি করে এসব অর্থ জমিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। অর্পিতা মুখোপাধ্যায় ইতিমধ্যে ইডির জিজ্ঞাসাবাদে বলেছেন, তিনি জানতেন না তাঁর ফ্ল্যাটে এত অর্থ রয়েছে এবং এর পুরোটাই পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের।

মন্ত্রিত্ব থেকে সরানোর পর পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের দলীয় পদও কেড়ে নেওয়া হতে পারে বলে আলোচনা রয়েছে। আজ বিকেলে তৃণমূল কংগ্রেসের শৃঙ্খলা রক্ষা কমিটির বৈঠকে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসতে পারে।

পার্থকে নিয়ে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গতকাল বলেছিলেন, দোষ করলে সাজা পেতেই হবে। আবার তিনি এ-ও বলেন যে রাজ্য চালাতে গেলে কিছু ভুলভ্রান্তি হয়েই থাকে। তবে কেউ যদি ইচ্ছাকৃত ভুল করেন, তাঁর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন