গতকাল কলকাতার নগর দায়রা আদালতের বিশেষ বিচারক পার্থকে ১৪ দিনের জেলহেফাজত দিয়ে প্রেসিডেন্সি কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। কারাগারের সেল ব্লকের ২ নম্বর সেলে রাখা হয়েছে পার্থকে। সেলটিতে একটি টেবিল ফ্যান ও অ্যাটাচড বাথরুম আছে। গতকাল রাতে এই সেলে বই পড়ে সময় কেটেছে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের। কারাগারের অন্যান্য সাধারণ বন্দীর মতো তাঁকেও একই খাবারদাবার দেওয়া হচ্ছে। বাড়তি কোনো সুবিধা দেওয়া হচ্ছে না।

কারাগারের নিয়ম মেনে আজ সকালে দুটি বিস্কুট ও এক কাপ চা দেওয়া হয়েছে একসময়ের প্রভাবশালী মন্ত্রী ও তৃণমূল কংগ্রেসের পদচ্যুত নেতাকে। দুপুরে পেয়েছেন সবজি, ডাল-ভাত। গতকাল রাতে দেওয়া হয়েছে দুটি রুটি, সবজি ও ডাল।

পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের পাশের সেলে রয়েছেন সারদার কর্ণধার সুদীপ্ত সেন ও রোজভ্যালির কর্ণধার গৌতম কুণ্ডু। পাশের আরেকটি সেলে রয়েছেন কলকাতার কুখ্যাত অপরাধী ব্যক্তিরা। তাঁদের মধ্যে আছেন জঙ্গি মুসা, আফতাব আনসারি, জামালউদ্দিন আনসারি প্রমুখ।

দুর্নীতির মামলায় পার্থর সঙ্গে অভিযুক্ত অর্পিতা মুখোপাধ্যায়কে রাখা হয়েছে আলিপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে। গতকাল রাতে কারাগারের খাবার খাননি তিনি। অর্পিতাকে আলিপুর কারাগারের ২ নম্বর ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। সাধারণত ভালো আচরণ করা কয়েদিদের জন্য এই ওয়ার্ড বরাদ্দ দেওয়া হয়। তবে কারাগারে ঢুকে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন অর্পিতা, প্রচুর কান্নাকাটি করেছেন। গত রাতে দেওয়া খাবার মুখেও তোলেননি তিনি। তবে আজ সকালে তাঁকে চা–বিস্কুট দেওয়া হলে খেয়েছেন।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন