বন্দরের মহাপরিচালক সামের কুবরুসলি বলেন, সমুদ্র উত্তাল হওয়ায় এবং ঝোড়ো বাতাসের কারণে প্রতিকূল পরিস্থিতিতে উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

অর্থনৈতিক সংকটে পড়া লেবানন ছাড়তে লেবানিজ, সিরীয় ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে সমুদ্রপথে ইউরোপ যাওয়ার চেষ্টা ব্যাপকভাবে বেড়েছে।

শুধু লেবাননেই হাজারো মানুষ চাকরি হারিয়েছেন। লেবানিজ মুদ্রার মান প্রায় ৯০ শতাংশ পড়ে গেছে। ক্রয়ক্ষমতা হারিয়ে মারাত্মক দারিদ্র্যের মধ্যে দিন কাটছে দেশটির অনেক পরিবারের।

ডুবে যাওয়া নৌকার যাত্রীদের সুনির্দিষ্ট সংখ্যা এবং তাঁরা ঠিক কোথায় যাচ্ছিলেন, তাৎক্ষণিক সেটা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। কোস্টগার্ডের সদস্যরা আরও লাশের খোঁজে উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রেখেছেন।

সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, নৌকায় বিভিন্ন দেশের নাগরিক ছিলেন।ইউরোপে তুলনামূলক উন্নত জীবনযাপনের আশায় গত মাসগুলোয় হাজারো লেবানিজ, সিরীয় ও ফিলিস্তিনি নৌকায় চড়ে লেবানন ছেড়েছেন।

মধ্যপ্রাচ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন