হামলার সময় ইমরান খানের পাশে ছিলেন তাঁর দলের নেতা ইমরান ইসমাইল। তিনি বলেন, একে-৪৭ রাইফেল নিয়ে এ হামলা চালানো হয়েছে। ওই ঘটনার একটি ভিডিও ফুটেজে বন্দুক হাতে এক যুবককে দেখা গেছে।

পাকিস্তানে আগাম নির্বাচনের দাবিতে লাহোর থেকে রাজধানী ইসলামাবাদের উদ্দেশে লংমার্চ শুরু করেছেন ইমরান খান। লংমার্চে কন্টেইনার ব্যবহার করে বিশেষ গাড়ি তৈরি করা হয়েছে। এই গাড়িতে যাত্রা করছেন ইমরান খান।

পাকিস্তানের একটি টেলিভিশন চ্যানেলকে ইমরান ইসমাইল বলেন, বন্দুকধারী কন্টেইনারের সামনে এসে গুলিবর্ষণ করেন। তাঁর হাতে থাকা একে-৪৭ রাইফেল দিয়ে গুলি চালানো হয়। হামলায় পিটিআই নেতা ফয়সাল জাভেদও আহত হয়েছেন।

হামলায় আহমাদ ছাত্তা নামের পিটিআইয়ের আরেক নেতা আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন দলটির নেতা ও সাবেক মন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী। এ নিয়ে ইমরানসহ মোট তিনজনের আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ফাওয়াদ চৌধুরী বলেন, পূর্বপরিকল্পিতভাবে এ হামলা চালানো হয়েছে।

হামলার পরে একাধিক ভিডিও পাকিস্তানের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোয় প্রকাশিত হয়েছে। সেখানে দেখা গেছে, পায়ে ব্যান্ডেজ বাঁধা ইমরান খানকে কন্টেইনার থেকে একটি গাড়ির দিকে নিয়ে যাচ্ছেন তাঁর নিরাপত্তারক্ষীরা। তাঁকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

এদিকে হামলার পরের একটি ভিডিও শেয়ার করা হয়েছে পিটিআইয়ের টুইটার পেজে। সেখানে দেখা গেছে, পায়ে গুলিবিদ্ধ হওয়ার পর ঘটনাস্থলে থাকা সমর্থকদের উদ্দেশে হাত নাড়াচ্ছেন ইমরান খান।