বিশ্বের শীর্ষ ধনী মাস্ক গত ২৭ অক্টোবর টুইটারের মালিকানা গ্রহণ করেন। যুক্তরাষ্ট্রের বৈদ্যুতিক গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টেসলার প্রধান মাস্ক ৪ হাজার ৪০০ কোটি ডলারে টুইটার কিনে নেন।

টুইটারের মালিকানা গ্রহণের পরই পরাগ আগারওয়ালকে কোম্পানির সিইওর পদ থেকে বরখাস্ত করেন মাস্ক। একই সঙ্গে তিনি কোম্পানির আরও কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাকে চাকরিচ্যুত করেন।

মাস্ক টুইটারের আগের পরিচালনা পর্ষদ ভেঙে দিয়েছেন। তারপর নিজেই হয়েছেন কোম্পানির বোর্ডের একমাত্র পরিচালক। টুইটারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে কাজ করবেন তিনি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম কোম্পানিটিতে যেকোনো জায়গায় বসে কাজ করার বিদ্যমান নীতি বাতিল করতে চান মাস্ক। সে ক্ষেত্রে কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া কর্মীদের অফিস বসেই কাজ করতে হবে।

টুইটারের কর্মী ছাঁটাইয়ের পরিকল্পনা নিয়ে দ্য নিউইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদন আগে অস্বীকার করেছিলেন মাস্ক।

গত মাসে দ্য ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, টুইটারের প্রায় ৭৫ শতাংশ কর্মী ছাঁটাইয়ের পরিকল্পনা করছেন মাস্ক।

কর্মী ছাঁটাইয়ের পরিকল্পনার বিষয়ে মন্তব্যের জন্য রয়টার্সের অনুরোধে তাৎক্ষণিকভাবে সাড়া দেয়নি টুইটার।

একাধিক সূত্রের বরাত দিয়ে রয়টার্স চলতি সপ্তাহের শুরুতে জানিয়েছিল, মাস্ক প্রথম দফায় টুইটারের এক–চতুর্থাংশ কর্মী ছাঁটাইয়ের পরিকল্পনা করছেন।