ব্যবহারকারীদের জন্য মাসে আট ডলারের বিনিময়ে টুইটারের ‘ব্লু টিক’ সেবা চালু করেছিলেন বিশ্বের শীর্ষ ধনী মাস্ক। কিন্তু শুরুতেই তাঁর এই উদ্যোগ বড় ধাক্কা খায়।

মাত্র আট ডলার দিয়ে অ্যাকাউন্ট যাচাইয়ের সুবিধার বদৌলতে অনেক ভুয়া অ্যাকাউন্ট নীল টিক পেয়ে যায়। এসব অ্যাকাউন্ট থেকে ভুয়া তথ্য ছড়ানো শুরু হয়। এ অবস্থায় ‘ব্লু টিক’ সেবা স্থগিত করে দিতে বাধ্য হয় টুইটার কর্তৃপক্ষ।

আগে রাজনীতিবিদ, বিখ্যাত ব্যক্তি, সাংবাদিক, তারকা এবং অন্য সুপরিচিত ব্যক্তিদের জন্য এই ‘ব্লু টিক’ সেবা সংরক্ষিত ছিল। টুইটার কর্তৃপক্ষ অ্যাকাউন্ট যাচাই–বাছাই করে এই ব্যাজ দিত।

২৯ নভেম্বর থেকে অর্থের বিনিময়ে ‘ব্লু টিক’ সেবা আবার চালুর পরিকল্পনা করেছিলেন মাস্ক। কিন্তু এখন এই পরিকল্পনা সাময়িকভাবে স্থগিত করা হলো।

মাস্ক টুইটার পোস্টে লিখেছেন, ভুয়া অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়েছে বলে ভালোভাবে নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত ব্লু ভেরিফায়েড (ব্লু টিক) আবার সচল করার সিদ্ধান্ত স্থগিত থাকবে।

মাস্ক তাঁর পরিকল্পনা সম্পর্কে বলেন, অ্যাকাউন্টের সত্যতা যাচাইয়ে ভিন্ন ভিন্ন রঙের টিক দেওয়া হতে পারে।

মাস্ক বলেছেন, গত সপ্তাহে টুইটারে নতুন ১৬ লাখ ব্যবহারকারী যুক্ত হয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের বৈদ্যুতিক গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টেসলার প্রধান মাস্ক গত ২৭ অক্টোবর টুইটারের মালিকানা গ্রহণ করেন। মালিকানা নিয়েই তিনি প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পরাগ আগারওয়ালসহ কোম্পানিটির কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাকে চাকরিচ্যুত করেন। পরে তিনি টুইটারের হাজারো কর্মীকে ছাঁটাই করেন। কর্মীদের দীর্ঘ সময় অফিসে থাকার কঠিন শর্ত দেন তিনি। এই শর্ত দেওয়ার পর অনেক কর্মী চাকরি ছেড়ে দেন।