বাইডেন জোর দিয়ে বলছেন, তিনি কোনো ভুল করেননি। তিনি এ ঘটনাকে ‘নির্দোষ ভুল’ হিসেবে চিহ্নিত করছেন।

গত বছরের নভেম্বরে প্রথম ওয়াশিংটনভিত্তিক চিন্তন প্রতিষ্ঠান ‘পেন বাইডেন সেন্টার ফর ডিপ্লোমেসি অ্যান্ড গ্লোবাল এনগেজমেন্ট’ দপ্তরে সরকারি কয়েকটি গোপনীয় নথি পাওয়া যায়। নথিগুলো ছিল বারাক ওবামার ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে বাইডেনের দায়িত্ব পালনকালের।

পরবর্তী সময়ে ডেলাওয়্যারের উইলমিংটন শহরে বাইডেনের বাড়ির গ্যারেজ ও মালপত্র রাখার স্থানে আরও নথি পাওয়া যায়।

বাইডেনের আইনজীবী বব বাউয়ার বলেন, ডেলাওয়্যারের বাড়িতে নথি পাওয়ার পর হোয়াইট হাউস মার্কিন বিচার বিভাগকে আরও তল্লাশির প্রস্তাব দেয়। এই প্রস্তাব অনুযায়ী, গত শুক্রবার বাড়িটিতে দীর্ঘ সময় ধরে তল্লাশি চালান বিচার বিভাগের তদন্তকারীরা। বাড়িটিতে তদন্তকারীদের সর্বাত্মক তল্লাশি শেষ হয়েছে।

তল্লাশিকালে বাইডেন ও তাঁর স্ত্রী ফার্স্ট লেডি জিল বাইডেন ডেলাওয়্যারের বাড়িতে উপস্থিত ছিলেন না। তল্লাশিতে বাইডেনের সিনেটর ও ভাইস প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালনকালের নথি পাওয়া গেছে।

বাইডেনের আইনজীবী বব বলেন, প্রেসিডেন্টের বাড়িতে মার্কিন বিচার বিভাগের কর্মকর্তাদের পূর্ণ প্রবেশাধিকার ছিল। তারা তাদের তদন্তের আওতাভুক্ত হিসেবে বিবেচিত নানা সামগ্রী নিয়ে গেছে। এই সামগ্রীর মধ্যে সরকারি ছয়টি গোপন নথি রয়েছে।