সোমবার সাংবাদিকদের মেক্সিকোর বামপন্থী প্রেসিডেন্ট বলেন, গত সপ্তাহে ওয়াশিংটন সফরের সময় বাইডেনকে তিনি একটি চিঠি হস্তান্তর করেন। সেখানে বিস্তারিত উল্লেখ রয়েছে যে অ্যাসাঞ্জ কোনো গুরুতর অপরাধ করেননি। তিনি আরও বলেন, তিনি (অ্যাসাঞ্জ) কারোর মৃত্যুর কারণ নন। তিনি কোনো মানবাধিকার লঙ্ঘনও করেননি। তিনি তাঁর স্বাধীনতার চর্চা করেছেন।

২০১০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের অতিসংবেদনশীল সামরিক ও কূটনৈতিক নথি প্রকাশ করায় অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ আনে মার্কিন প্রশাসন। যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে দোষী সাব্যস্ত হলে তাঁর ১৭৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে। সারা বিশ্বের অতি গুরুত্বপূর্ণ নথি প্রকাশ করে দেওয়ার মাধ্যম সাড়া ফেলেন অ্যাসাঞ্জ।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন