default-image

গত বুধ থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সেখানে ১৩০ থেকে ২৫০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। বন্যায় ঘরবাড়ি ভেসে গেছে। তলিয়ে গেছে রাস্তাঘাট। নদীর কূল ভেঙেছে। খাড়া পাহাড় ও সরু উপত্যকার কারণে অঞ্চলটিতে বন্যার প্রবণতা বেশি হলেও বিশেষজ্ঞরা বন্যার জন্য জলবায়ু পরিবর্তনকেও দায়ী করছেন।

ভয়াবহ এই বন্যা সাত মাসের মধ্যে কেনটাকিতে দ্বিতীয় বড় ধরনের কোনো জাতীয় দুর্যোগ। গত ডিসেম্বরে বেশ কয়েকটি টর্নেডোর আঘাতে এই অঙ্গরাজ্যের পশ্চিম অংশে প্রায় ৮০ জনের মৃত্যু হয়।

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন কেনটাকি বড় ধরনের বিপর্যয়ের মধ্যে পড়েছে বলে গত শুক্রবার ঘোষণা দিয়েছেন। প্রেসিডেন্টের এমন ঘোষণার কারণে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে তহবিল পাবে কেনটাকি।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন