ইলন মাস্ক টেসলার ব্যবসায়ও ধাক্কা খেয়েছেন। বাজার থেকে ৩ লাখ ২১ হাজার গাড়ি ফিরিয়ে নিতে হয়েছে সংস্থাটিকে। কারণ, গাড়িগুলোর পেছনের আলো ঠিকমতো কাজ করছিল না। এ ছাড়া আরও ৩০ হাজার গাড়ির এয়ার ব্যাগ কাজ করছে না ঠিকমতো। এসব কারণে টেসলার শেয়ার কমতে শুরু করেছে। ৩ শতাংশ শেয়ার কমে গেছে টেসলার এ বছর, যা গত ২ বছরে সবচেয়ে কম।

এক বছর আগেও ইলন মাস্কের সম্পদ ছিল ৩৪০ বিলিয়ন ডলারের আশপাশে। সেটা কমে এসে এ বছর ঠেকেছে ১৭০ বিলিয়ন ডলারে। এ বছর পকেটে থেকে খসেছে ১০১ বিলিয়ন ডলার। এর মধ্য মাস্ক নিজের প্রতিষ্ঠানগুলোর কিছু শেয়ার বিক্রি করেছেন। তবে শুধু মাস্ক নন, শেয়ারবাজারে এ বছর ক্ষতির মুখে পড়েছেন মার্ক জাকারবার্গ, বার্নার্ড আর্নল্ড, গৌতম আদানীসহ অন্যান্য ধনকুবেরও। বছরে প্রায় ৫০ হাজার কোটি ডলার ক্ষতি হয়েছে তাঁদের।

ইলন মাস্কের সংস্থা টেসলা গাড়ির পাশাপাশি সোলার ব্যাটারিও বিক্রি করে। মহাকাশ গবেষণা সংস্থা স্পেস এক্স–এরও মালিক তিনি। সম্প্রতি কিনেছেন টুইটার। টুইটারের ৭৯ শতাংশ শেয়ার রয়েছে তাঁর হাতে। টুইটারে মালিকানা পেয়েই নানা বদল আনেন মাস্ক। কয়েক সপ্তাহে টুইটারের বহু কর্মীকে ছাঁটাই করেছেন। সাড়ে সাত হাজার কর্মী ছাঁটাইয়ের পর সংস্থার কর্মীরা ইলনের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করতে শুরু করেন। এরপর ছাঁটাই বন্ধ করে নিয়োগ করার কথা ভাবছেন মাস্ক।

গত সোমবারের হিসাবে টেসলার শেয়ার ৬ দশমিক ৮ শতাংশ কমে ১৬৭ দশমিক ৮৭ হয়েছে। ২০২০ সালের নভেম্বরের পর এটি সর্বনিম্ন। গত মাসের হিসাবে ২০ শতাংশ কমেছে শেয়ারের দাম, এ বছর কমেছে ৫৮ শতাংশ। সব মিলিয়ে এ বছর প্রযুক্তিপ্রতিষ্ঠানগুলোর শেয়ারের সূচকে প্রায় ৩০ শতাংশ পতন হয়েছে। তথ্যসূত্র: ইন্ডিয়া টাইমস