আজ দুপুরে রাজধানীর রায়সাহেব বাজার মোড়সংলগ্ন ঢাকার সিজেএম আদালত ফটকের সামনে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গি মইনুল হাসান শামীম ওরফে সিফাত সামির ও মো. আবু ছিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিবকে সহযোগীরা ছিনিয়ে নেন।

আসামিদের পালিয়ে যাওয়া ঘটনায় দায়দায়িত্ব নির্ধারণ ও ভবিষ্যৎ করণীয় সম্পর্কে বিস্তারিত সুপারিশ করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ডিএমডির গঠন করা কমিটিকে। অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনারের (ক্রাইম অ্যান্ড অপস্) নেতৃত্বে গঠিত এই কমিটিতে যুগ্ম কমিশনার (অপারেশনস), যুগ্ম কমিশনার (সিটিটিসি), উপকমিশনার (গোয়েন্দা, লালবাগ) ও অতিরিক্ত উপকমিশনার (সিআরও) সদস্য হিসেবে থাকবেন।

দুই জঙ্গিকে ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনার পর ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ প্রথম আলোকে বলেন, দুই জঙ্গিকে তাঁদের সহযোগীরা ছিনিয়ে নিয়েছেন।

একটি মামলায় শুনানি শেষে আদালত থেকে হাজতখানায় নেওয়ার পথে দুই জঙ্গির সহযোগীরা হাজতখানা পুলিশের চোখে স্প্রে ছিটিয়ে, কিলঘুষি মেরে মইনুল হাসান শামীম ও মো. আবু ছিদ্দিক সোহেলকে ছিনিয়ে নেন। এরপর তাঁরা দুটি মোটরসাইকেলে রায়সাহেব বাজার মোড়ের দিকে পালিয়ে যান।

এ ঘটনার পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খান দেশজুড়ে ‘রেড অ্যালার্ট’ ঘোষণার কথা জানান। এর আগে পুলিশের পক্ষ থেকে এক ঘোষণায় দুই জঙ্গিকে ধরিয়ে দিলে ১০ লাখ করে মোট ২০ লাখ টাকা পুরস্কারের ঘোষণা দেওয়া হয়।