কেন্দ্রগুলোতে ১৮ হাজার মানুষ আশ্রয় নিয়েছে। খালিয়াজুরির কৃষ্ণপুর, বল্লভপুর, পাঁচহাট, চাকুয়া, নগরসহ বিভিন্ন এলাকায় মানুষ আটকা পড়ে আছেন। সেনাবাহিনীর সদস্যরা তাদের উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে নিয়ে আসবেন।

খালিয়াজুরি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এ এইচ এম আরিফুল ইসলাম বলেন, সেনাবাহিনীর ১৩০ জনের একটি দল খালিয়াজুরিতে আসছে। ইতিমধ্যে ১৬ জনের একটি দল উপজেলা সদরে পৌঁছেছে।

সেনাবাহিনীর সদস্যরা রাতে মদন হাজী আবদুল আজিজ খান সরকারি ডিগ্রি কলেজে অবস্থান নিয়েছিলেন বলে জানান তিনি। দলটির টুআইসি মেজর জিসান আজ রোববার সকাল নয়টার দিকে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমাদের সঙ্গে চারটি রেসকিউ বোট আছে।

এ ছাড়া স্থানীয়ভাবে কিছু ইঞ্জিনচালিত বড় নৌকা ভাড়া করা হচ্ছে। তা দিয়ে বন্যার্তদের নিরাপদ স্থানে নিয়ে আসা হবে। সঙ্গে গবাদিপশু, হাঁস-মুরগিসহ গৃহপালিত প্রাণী, ধান ও প্রয়োজনীয় মালামাল নিয়ে আসা হবে। এ ছাড়া আমাদের পক্ষ থেকে শুকনা খাবার বিতরণ করা হবে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন