এর মধ্যে আক্তার হোসেন নামের এক যাত্রী ওই অটোরিকশায় উঠলেন। আক্তার হোসেন বললেন, নিজের মোটরসাইকেল কিংবা ব্যক্তিগত যান নেই। এ জন্য আজকে অটোরিকশাই ভরসা। কিন্তু কয় দিন পরপর ধর্মঘটের কারণে যাত্রীরা বেকায়দায় পড়েন। অনেক সময় পায়ে হেঁটে গন্তব্যে যাওয়া-আসা করতে হয়।

গত বৃহস্পতিবার বিকেলে জেলা গণপরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ চার দফা দাবি জানিয়ে আজ দিনব্যাপী সব ধরনের গণপরিবহনে ধর্মঘটের ডাক দেয়। অন্যদিকে সিলেট জেলা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় গ্রিল সংযোজন এবং নতুন করে সিএনজিচালিত অটোরিকশা রেজিস্ট্রেশন না দিতে আজ সকাল ছয়টা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত বাস ধর্মঘটের ডাক দেয়। দুটি ধর্মঘটই আজ সকাল ছয়টায় শুরু হয়েছে।

তবে আজ সকাল থেকে দক্ষিণ সুরমার হুমায়ুন রশীদ চত্বর, চণ্ডীপুর, আম্বরখানা, লামাবাজার এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ধর্মঘট উপেক্ষা করে কিছু কিছু অটোরিকশা চলাচল করছে। তবে অটোরিকশার সংখ্যা অন্য দিনের তুলনায় কম।

আম্বরখানা মোড়ের অটোরিকশাচালক জুবায়ের ইসলাম বলেন, ‘আমরা তো জানি, বড় গাড়িগুলোর ধর্মঘট। আমাদের ধর্মঘট জানা নেই।’

ধর্মঘটের দিন অটোরিকশা চলাচলের বিষয়ে জানতে চাইলে সিলেট জেলা অটোরিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘আমরা আমাদের সিদ্ধান্ত শ্রমিকদের জানিয়েছি। তবে কাউকে বাধ্য করা হচ্ছে না।’

এদিকে আজ সিলেট সরকারি আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে বিএনপির সিলেট বিভাগীয় গণসমাবেশ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতে বিভাগের বিভিন্ন এলাকা থেকে নেতা-কর্মীরা অংশ নিচ্ছেন। বিএনপির নেতাদের দাবি, সরকার বিএনপির সমাবেশকে বাধাগ্রস্ত করতে ইচ্ছাকৃতভাবে বিভিন্ন পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠনদের দিয়ে এসব ধর্মঘট ডাকিয়েছে।