স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, করোনা প্রতিরোধে সচেতনতা, চিকিৎসাসহ অন্যান্য কাজে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে সমন্বিত উদ্যোগ ছিল দেশব্যাপী। মানুষের মধ্যেও এ নিয়ে সচেতনতা গড়ে উঠেছিল। কিন্তু ডেঙ্গু নিয়ে এ ধরনের কোনো উদ্যোগ এখনো নেই। বিষয়টি নিয়ে কেউ ভাবছেও না। ফলে মানুষের মধ্যে এ নিয়ে একধরনের উদাসীনতা আছে। আর এতে নীরবে এই রোগটি বিস্তার ঘটছে এবং আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে।

চলতি মাসের প্রথম ৮ দিনে (১-৮ নভেম্বর) বিভাগে ৫৩০ জন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ সময়ে মারা গেছেন ১ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, গত সেপ্টেম্বরে এই বিভাগে ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হয়। এরপর তা ক্রমেই বাড়তে থাকে। চলতি মাসের প্রথম ৮ দিনে (১-৮ নভেম্বর) বিভাগে ৫৩০ জন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ সময়ে মারা গেছেন ১ জন। সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর মাসে বিভাগে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৬৪২। এর মধ্যে ১ সেপ্টেম্বর থেকে ১৫ অক্টোবর দেড় মাসে আক্রান্ত হয়েছিল ৭৪৩ জন। বিভাগে এ পর্যন্ত মারা যাওয়া ৭ জনের মধ্যে ৫ জনেরই মৃত্যু হয়েয়েছে সেপ্টেম্বর মাসে। এ ছাড়া অক্টোবরে ১ জন এবং সর্বশেষ ৭ নভেম্বর একজন মারা গেছেন।

বিভাগে এ পর্যন্ত আক্রান্ত ২ হাজার ১৭২ জনের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রোগী পিরোজপুরের। এরপরে আছে বরগুনা জেলা। মৃত্যুও এই দুই জেলায় বেশি।
পিরোজপুরে হাসপাতালে ডেঙ্গু নিয়ে ভর্তি হয়েছেন ৩৮৩ জন। আর বরগুনায় ৩১৫ জন। আর বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন ৮২৮ জন। এসব রোগীর মধ্যে বেশির ভাগই পিরোজপুর, বরগুনা ও ঝালকাঠি জেলার। এর বাইরে পটুয়াখালী জেলায় হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২০৭ জন, ঝালকাঠিতে ৭২ জন, ভোলায় ১৪৮ জন এবং বরিশাল সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন ২৯১ জন রোগী। মারা যাওয়া ৭ জনের তিনই পিরোজপুরের, দুজন বরগুনার এবং বরিশাল ও ঝালকাঠির একজন করে আছেন। এই ৭ জনেরই মৃত্যু হয়েছে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

হাসপাতালটির পরিচালক এইচ এম সাইফুল ইসলাম গতকাল বুধবার দুপুরে প্রথম আলোকে বলেন, ‘হাসপাতালের পাঁচতলা করোনা ইউনিটের চতুর্থ তলায় ডেঙ্গুর রোগীদের জন্য নতুন ওয়ার্ড করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ জন্য ওই ওয়ার্ডটি প্রস্তুতের কাজ করছে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত বিভাগ। কিন্তু কাজের গতি খুবই মন্থর। আমরা বারবার তাগাদা দিচ্ছি। সর্বশেষ বিভাগের কর্মকর্তারা ২০ নভেম্বর এই ওয়ার্ডটি হস্তান্তরের জন্য সময় নিয়েছেন। এ ছাড়া আমরা একটি প্লাটিলেট সেল সেপারেটর মেশিন চেয়ে মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেছিলাম। মঙ্গলবার আমাকে ফোন করে এই মেশিন দ্রুত সময়ের মধ্যে সরবরাহের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। আশা করছি অল্প দিনের মধ্যেই এই মেশিন আসবে।’

জেলা ও উপজেলা হাসপাতালগুলোতে যাতে রোগীদের ডেঙ্গু শনাক্ত ও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেওয়া যায়, সে লক্ষ্যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের উপপরিচালক শ্যামল কৃষ্ণ মণ্ডল। তিনি বুধবার দুপুরে প্রথম আলোকে বলেন, পর্যাপ্ত মশারি ও ওষুধ সরবরাহ করা হয়েছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া সব চিকিৎসকের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। সবাইকে সচেতন করতে প্রচার-প্রচারণা বাড়াতে সরকারি সব দপ্তরের প্রধানের সঙ্গে অনলাইনে বৈঠক করা হয়েছে।