হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বদিউজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, আদালত থেকে ছিনিয়ে নেওয়া দুই আসামির সীমান্ত পাড়ি দেওয়া ঠেকাতে কড়া সতর্কতার বিষয়ে বিকেলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে বার্তা পেয়েছেন। এরপর তল্লাশিচৌকিতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। এ ছাড়া বাংলাদেশ থেকে পাসপোর্টের মাধ্যমে ভারতগামীদের সঠিকভাবে পর্যবেক্ষণ করার পরই অনুমতি দেওয়া হচ্ছে। এ ব্যাপারে ইমিগ্রেশন ডেস্কে দায়িত্বশীল কর্মকর্তারাও অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে প্রতিটি পাসপোর্ট যাচাই করে ভারতে যাওয়ার অনুমতি দিচ্ছেন।

হিলি সমন্বিত চেকপোস্টের (আইসিপি) বিজিবি কোম্পানি কমান্ডার খন্দকার রায়হান আলী প্রথম আলোকে বলেন, ঢাকার আদালতের দণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি ছিনতাইয়ের ঘটনায় বিজিবির পক্ষ থেকে হিলি সীমান্তে কঠোর অবস্থানে আছেন। এ জন্য সীমান্তের প্রতিটি পয়েন্টে বিজিবি টহল বৃদ্ধি করা হয়েছে। এ ছাড়া দুই আসামি যাতে ছদ্মবেশে পালাতে না পারে, সে জন্য সন্দেহভাজন লোককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।