নওগাঁ শহরের কেডির মোড় বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এ সভায় ইকবাল হাসান মাহমুদ বলেন, গত ১৪ বছরে দেশের সাধারণ মানুষের কোনো উন্নয়ন হয়নি। উন্নয়ন হয়েছে আওয়ামী লীগের নেতাদের পেট ভরাবার জন্য। আওয়ামী লীগের যে নেতা ইউপি চেয়ারম্যান, তিনিও কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। এই টাকা দেশের মানুষের। মানুষ আওয়ামী লীগের অন্যায়-অত্যাচারের বিরুদ্ধে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। ভাতের অধিকার আদায়ের জন্য রাস্তায় নেমেছে। বিএনপি কোনো কারণে মানুষের অধিকার আদায়ের আন্দোলন থেকে সরে দাঁড়ালে বেইমান বলে চিহ্নিত হবে।

১০ ডিসেম্বর বাংলাদেশের মানুষ চমক দেখবে বলে উল্লেখ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ১০ ডিসেম্বর ঢাকার মহাসমাবেশের আগে ৩ ডিসেম্বর শেষ বিভাগীয় গণসমাবেশ হবে রাজশাহীতে। রাজশাহীর গণসমাবেশ মানবসমুদ্রে পরিণত করতে হবে। সেই ঢেউ গিয়ে ঠেকবে ঢাকায়।

ইকবাল হাসান মাহমুদ বলেন, ‘এবারের লড়াই আমাদের জীবন-মরণ লড়াই। এই লড়াইয়ে হয় জিতব, নয়তো মরব। মরে গিয়ে বিএনপির কর্মীরা প্রমাণ করবেন, গণতন্ত্রের জন্য তাঁরা জীবন দিতে পারেন।’

নওগাঁ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু বক্কর সিদ্দিকের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহসাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ শাহীন শওকত, নওগাঁ পৌরসভার মেয়র ও বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহসমবায়বিষয়ক সম্পাদক নজমুল হক, জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আবদুল মতিন প্রমুখ।