মন্ত্রী বলেন, ‘ফারদিন হত্যায় এখনো অকাট্য প্রমাণসহ এমন কোনো তথ্য আমরা পাইনি। তাই এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না। আমরা তথ্যপ্রমাণভিত্তিক কথা বলি। এখনো সে রকম বলার মতো তথ্য আসেনি। তারপরও হারুন (ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার—ডিবি) হয়তো কিছু বলেছেন।’

মাদকের সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এ মুহূর্তে আমরা কিছু বলতে পারছি না।’

৪ নভেম্বর নিখোঁজ হওয়ার তিন দিন পর ৭ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে বুয়েটের পুরকৌশল বিভাগের শিক্ষার্থী ফারদিনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় রামপুরা থানায় তাঁর বাবার করা মামলায় আয়াতুল্লাহ বুশরা নামের এক বন্ধুকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

মামলা তদন্তের অগ্রগতি প্রসঙ্গে গত শনিবার ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) প্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা পারিপার্শ্বিকতা, বিভিন্ন বিষয় বিচার–বিশ্লেষণ করছি। আমাদের দল সব বিষয়, তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহ করে বিচার–বিশ্লেষণ করছে।’

ফারদিন হত্যাকাণ্ডে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের চনপাড়াকেন্দ্রিক অপরাধী চক্রের সদস্যরা জড়িত থাকতে পারেন, এমনটি ধরে নিয়ে তদন্ত চলছে।