এতে যেসব ব্যাংকের শাখা–উপশাখার স্বাভাবিক কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছে না, সেসব শাখা–উপশাখা বন্ধ রেখে গ্রাহকদের নিকটবর্তী শাখা থেকে জরুরি সেবা প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। তবে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ার পর দ্রুত সংশ্লিষ্ট শাখা–উপশাখার কার্যক্রম চালু করতে হবে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এ নির্দেশনা সব ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহীর কাছে পাঠানো হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, ব্যাংক কোম্পানি আইনের ক্ষমতাবলে জনস্বার্থে এ নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

এদিকে বন্যার কারণে সিলেট ও সুনামগঞ্জে ব্যাংকের শাখাগুলো আজ রোববার খোলেনি। পানিতে তলিয়ে গেছে ব্যাংকগুলোর এটিএম বুথ। যেসব ব্যাংকের শাখা নিচতলায়, সেগুলো পানিতে ডুবে গেছে। তবে যেসব শাখা দোতলা ও তিনতলায়, সেসব শাখা এখনো নিরাপদ আছে।

ইন্টারনেট, মুঠোফোন ও বিদ্যুৎব্যবস্থা না থাকায় ব্যাংকগুলোর সব ধরনের সেবা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এ কারণে ওই সব এলাকার ব্যাংকের শাখার পাশাপাশি এটিএম, মোবাইল ব্যাংকিং সেবাও বন্ধ রয়েছে।

ব্যাংক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন