আজ শনিবার সকালে এ বিষয়ে প্রথম আলোর সঙ্গে কথা বলেন রাজ। তিনি বলেন, ‘ব্যাপারগুলো যেহেতু পরী সামনে এনেছে, তারই পরিষ্কার করা ভালো। আমি শুধু বলব, পরীকে আমি ভালোবেসেছি, ভালোবাসি এবং ভালোবেসে যাব। আমরা ভালোবেসেই বিয়ে করেছি। সে আমার সন্তানের মা। আমি ওকে সম্মান করি, শ্রদ্ধা করি সব সময়। পরী যেসব কথা তুলেছে, কেন তুলেছে সে-ই ভালো বলতে পারবে। আমি শুধু বলতে পারি, আমাদের দুজনের সম্পর্কের মধ্যে তৃতীয় কোনো কিছু ঘটেনি। আমি দৃঢ়ভাবে বলতে চাই, আমার পরিবার, কাজ, বন্ধুবান্ধবসহ সব ক্ষেত্রে সৎ থাকার চেষ্টা করেছি, সব সময় সে চেষ্টাই করে যাব।’

শরীফুল রাজ এ-ও বললেন, ‘আমি কোনো দিন আমার পারিবারিক বিষয়, ব্যক্তিগত জীবন সবার সামনে আনিনি। এসব নিয়ে কথা বলতেও চাই না। সবাই আমাকে কাজ দিয়ে চিনেছে, কাজ দিয়েই চিনতে থাকুক। আমার সঙ্গে ভক্তদের যোগাযোগ কাজ দিয়েই হয়েছে। সেটাই অব্যাহত থাকুক।’

‘গুণিন’ চলচ্চিত্রের শুটিং করতে গিয়ে শরীফুল রাজ ও পরীমনির প্রেমের সম্পর্কে জড়ান। এরপর ২০২১ সালের ১৭ অক্টোবর ভালোবেসে শরীফুল রাজ ও পরীমনি বিয়ে করেন। প্রেম হওয়ার ঠিক সাত দিনের মাথায় এমন সিদ্ধান্ত নেন বলে এক সাক্ষাৎকারে পরীমনি জানিয়েছেন। চলতি বছরের ১০ আগস্ট তাঁরা পুত্রসন্তানের জনক-জননী হন। হঠাৎ করে পরীমনি তাঁর ফেসবুক পোস্টে শরীফুল রাজ ও মিমের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে আভাস দেওয়াতে অনেকেই ভাবছেন, পরীমনি ও রাজের সংসার কি ভেঙে যাচ্ছে?

এমন প্রশ্ন উড়িয়ে দিয়ে রাজ বললেন, ‘যে ধরনের কথা হচ্ছে, আমার পক্ষ থেকে এ ধরনের কোনো ঘটনাই ঘটেনি যে হুট করে সংসার ভেঙে যাবে। আমরা ভালোবেসে বিয়ে করেছি। আমাদের সন্তানও আছে। তাই আমি বলব, পরী যদি নিজের অজান্তে কোনো ভুল বুঝে থাকে, তবে তার চিন্তাভাবনা দিয়ে সবকিছু স্বাভাবিক করবে, সামলে নেবে।’
চলচ্চিত্রের পর্দায় মিমের সঙ্গে শরীফুল রাজের প্রেমের সম্পর্ক সবাই দেখেছেন। ‘পরাণ’ ও ‘দামাল’-এ তাঁদের জুটি দর্শকেরা গ্রহণও করেছেন। পর্দায় এই জুটির সাফল্যের গল্প চলছিল যখন, ঠিক তখনই তাঁদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক চলছে বলে চাউর হতে থাকে।