জেলেনস্কি বলেন, ‘আজ আমি আসলে বুঝতে পারছি না, কার সঙ্গে কথা বলব, কোন বিষয়ে কথা বলব। আমি আসলে নিশ্চিত নই রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট, যিনি মাঝেমধ্যে সবুজ পর্দার সামনে হাজির হন, তিনি আসল কি না। আমি বুঝতে পারি না তিনি বেঁচে আছেন কি না, তিনি সব সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন কি না, নাকি অন্য কেউ নিচ্ছে।’

এ সময় হতাশা প্রকাশ করে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমার মাথায় আসে না কীভাবে আপনারা (রাশিয়া) ইউরোপের নেতাদের একটি বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পরদিনই ইউক্রেনে পুরোদমে আগ্রাসন শুরু করতে পারেন। আমি আসলে বুঝতেই পারছি না কার সঙ্গে আমরা কাজ করছি। আমরা যখন শান্তি আলোচনার কথা বলি, আমি বুঝি না কার সঙ্গে এই আলোচনা করব।’

এদিকে জেলেনস্কির এমন বক্তব্যের কয়েক ঘণ্টা পর কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ। ফক্স নিউজ তাঁকে উদ্ধৃত করে জানায়, ‘রাশিয়া ও পুতিন যে ইউক্রেন ও জেলেনস্কির জন্য বড় একটি সমস্যা, তা পরিষ্কার। আর এটাও স্পষ্ট যে জেলেনস্কি মন থেকে চান, রাশিয়া ও পুতিনের কোনো অস্তিত্ব না থাকুক। তবে যত তাড়াতাড়ি তিনি বুঝবেন রাশিয়ার অস্তিত্ব আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে, একটি দেশ হিসেবে ইউক্রেনের জন্য ভালো হবে।’

পুতিনের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডের প্রতি ইঙ্গিত করেই হয়তো জেলেনস্কি ওই মন্তব্য করেছেন বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ, গত কয়েক সপ্তাহে সরকারি কোনো অনুষ্ঠানে অংশ নেননি রুশ প্রেসিডেন্ট। এমনকি গত ডিসেম্বরে বার্ষিক সংবাদ সম্মেলনও বাতিল করেন তিনি।