বর্তমান বিদ্যুৎ পরিস্থিতি নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, ‘বিদ্যুৎ যে কখন যেত আর কখন আসত, কিছুই জানা ছিল না। একবার বিদ্যুৎ চলে গেলে শুধু জেনারেটর, আইপিএস এগুলো চলত। আমরা এখন কিন্তু যতটা প্রয়োজন, তার চেয়ে বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারি।’ তিনি বলেন, ‘নিশ্চয়ই আপনাদের প্রশ্ন এসে যাবে, তাহলে লোডশেডিং কেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আমাদের ক্ষমতা আছে। তারপরও আমরা লোডশেডিং করছি। তিনি একজন দক্ষ, বিজ্ঞ নেতা। আজকে ডিজেল, ফার্নেস অয়েল, এলএনজি এগুলো যুদ্ধের জন্য সরবরাহ বিঘ্নিত হচ্ছে। দাম বেড়ে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বিদ্যুতে এত বেশি ভর্তুকি দিতে হয়। সাশ্রয় হওয়ার জন্য উনি আপনাদের কাছে সহযোগিতা চেয়েছেন। আগে তো ৬ ঘণ্টা, ১২ ঘণ্টা বিদ্যুৎ থাকত না। প্রধানমন্ত্রী এক ঘণ্টা করে বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ের কথা বলেছেন। আমার মনে হয় এটা খুব বেশি কিছু নয়। ভর্তুকির চাপ একটু সহ্য করার জন্য এটা বলেছেন।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘ক্ষুধা, মঙ্গাপীড়িত বাংলাদেশ ছিল। দারিদ্র্যের চরম শিখরে আমরা ছিলাম। লাখ লাখ টন খাদ্য ইমপোর্ট করতে হতো। প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় এসে বলেছিলেন, তিনি বাংলাদেশকে বদলে দেবেন। যথার্থভাবেই বদলে দিয়েছেন।’

মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকারিয়া। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অ্যান্ড অপস) সুদর্শন কুমার রায়ের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য দেন পুলিশের সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন মৌলভীবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য নেছার আহমদ, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দা জোহরা আলাউদ্দিন ও জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন