এই কারাগারের অ্যাডমিশন বিভাগে রাখা হয়েছে আলভেজকে। তাঁকে নিয়ে আদালতের পরবর্তী সিদ্ধান্ত আসার আগপর্যন্ত এখানেই আটক থাকবেন ব্রাজিলিয়ান রাইটব্যাক।

স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম মার্কার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বর্তমানে এই কারাগারে ৬২৫ জন কয়েদিকে রাখা হয়েছে। কারাগারটিতে বেশ কয়েকটি ভবন রয়েছে, যেখানে সাংস্কৃতিক, শিক্ষামূলক এবং ক্রীড়া কার্যক্রম চালু আছে। অন্যান্য সুবিধার মধ্যে পাঠাগার, অনুশীলন কক্ষ এবং অ্যাসেম্বলি হলও আছে এখানে।

তবে স্প্যানিশ কারা সংস্থা এই কারাগার নিয়ে মোটেই সন্তুষ্ট নয়। এর আগে স্টাফস্বল্পতা এবং দুর্বল নিরাপত্তাব্যবস্থার কারণে কারাগারটি নিয়ে সমালোচনা করেছিল তারা। কারাগারে আলভেজকেও চরম অবস্থার ভেতর দিয়ে যেতে হচ্ছে বলে জানিয়েছে মার্কা। যদিও বর্তমানে কারাগারের পৃথক একটি অংশে রাখা হয়েছে তাঁকে। বিশেষ এই কক্ষগুলো মূলত তারকা কারাবন্দীদের জন্য বরাদ্দ।

কারাগারে প্রথম দিনেই নাকি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন আলভেজ। এদিন নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে তিনি খুব অল্প কথা বলেছেন। আর সামান্য কিছু ফল খেলেও রাতের খাবার নাকি ছুঁয়েও দেখেননি। এ ছাড়া ফোন করার অনুমতি থাকলেও তিনি কাউকে ফোন করেননি। নিজের এবং পরিবারের অন্যদের ফোন নম্বর নাকি তাঁর মনে নেই।

এদিকে আলভেজের এই ঘটনায় বিস্মিত ও স্তব্ধ বলে মন্তব্য করেছেন তাঁর সাবেক সতীর্থ ও বার্সেলোনা দলের বর্তমান কোচ জাভি হার্নান্দেজ। স্প্যানিশ কিংবদন্তি বলেছেন, ‘এ ধরনের পরিস্থিতি নিয়ে মন্তব্য করা কঠিন। আমি বিস্মিত ও স্তব্ধ। বিমূঢ় অবস্থাতেই আছি। তাঁর জন্য দুঃখ হচ্ছে। আমি বিস্মিত।’