ট্যাগ

কবিতা-অন্য আলো

কবিতা-অন্য আলো

শামসুর রাহমানের অগ্রন্থিত কবিতা

নির্জন মুহূর্তের কবিতা

শামসুর রাহমানের এই কবিতাটি প্রথম ছাপা হয়েছিল মাহে নও পত্রিকায়, ১৯৫১ সালে। কবি তখন ২২ বছরের তরুণ। তাঁর প্রথম জীবনের লেখালেখির চিহ্ন আছে এই কবিতায়। কবিতাটি পাওয়া গেছে অধ্যাপক ভূঁইয়া ইকবালের সৌজন্যে।

নির্জন মুহূর্তের কবিতা

সাহিত্যে নোবেল ২০২০

লুইজ গ্লিক ও তাঁর কবিতা

এ বছর সাহিত্যে নোবেল পেয়েছেন মার্কিন কবি লুইজ গ্লিক। নোবেল জয়ের অনেক আগে তাঁর কবিতা বাংলা ভাষায় অনুবাদ করেছিলেন শামস আল মমীন এবং তা ছাপা হয়েছিল প্রথম আলোয়, ২০০৫ সালে। সেই কাহিনির সূত্রে এই কবির ...

লুইজ গ্লিক ও তাঁর কবিতা

লুইজ গ্লিকের কবিতা

প্যাট্রোক্ল্যাসের গল্পে কেউই বাঁচে না, এমনকি অ্যাকিলিসও নয়, যে প্রায় দেবতা একজন। প্যাট্রোক্ল্যাস তারই মতো; তারা পরতেন একই রকম বর্ম।এ রকম বন্ধুত্বে সব সময় একজন সেবা করে অন্যজনের,একজন আরেকজনের চেয়ে ...

লুইজ গ্লিকের কবিতা

শামীম আজাদের কবিতা

শামীম আজাদের কবিতাগুলো লৌকিকতার সৌরভে ভরা, যেখানে আকুল হৃদয়ে কবি বলেন, ‘কইলজাত আছলায় বন্দু আমার, অনকু কাপড়র মাজে, শাড়ি ছাড়া শামীম আজাদ, তোমারে পায় না যে!’ পড়ুন হৃদয় মথিত করা তিনটি কবিতা।

শামীম আজাদের কবিতা

সাতটি স্বর্গ পুড়ে ছাই

সহস্র বকুলঝরা ভোর! অনুকম্পার মতো যে বৃষ্টি নেমে এল হঠাৎ বিদীর্ণ তার ঘোর এবং সে আর্তনাদে সাতটি স্বর্গ পুড়ে ছাই! হায়েনা-উৎসব দেশে নারী তবু কাকে ডাকে ‘ভাই’।

সাতটি স্বর্গ পুড়ে ছাই

পেরেক

ভাষাও যেখানে বোবা হয়ে যায় শব্দের হাড়গোড় খুলে পড়ে অক্ষম বেদনায়, বিবস্ত্র বাক্যরা থেঁতলে যায় ভিডিও ক্যামেরার ঘোলা লেন্সের নিচে, তখন কোন ধ্বনিতে আমি ক্ষোভ আর ঘৃণা প্রকাশ করব?

পেরেক

মেয়ে

মেয়েকে বাইরে যাবার কে দেবে নিরাপদ ঠাঁই কীভাবে কতকাল আর বাঁচবে স্থান যার নাই!

মেয়ে

সদ্য নোবেলজয়ী লুইস গ্লুকের কবিতা

আজকে কিছুক্ষণ আগেই সুইডিশ একাডেমি ঘোষণা করল সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার বিজয়ীর নাম। ২০২০ সালে নোবেল জয় করলেন মার্কিন কবি লুইস গ্লুক। এই কবি তাঁর কবিতার সাবলীল আর ব্যতিক্রমী ভাষাশৈলী দিয়ে নিজেকে এমনভাবে ...

 কোলাজ: মনিরুল ইসলাম

পদ্মার পাড়ে যাইতে হবে বধূয়া

পদ্মার চরে কাশফুল ফোটে বলেই আজ আমাকে এই কবিতাটা লেখতে হচ্ছে! এখন এই কবিতা লেখার জন্য আমাকে পদ্মার পাড়ে যাইতে হবে নাহলে আমি কীভাবে বুঝব যে দীর্ঘ নদীর পাড়ে দীর্ঘ কাশের বন

পদ্মার পাড়ে যাইতে হবে বধূয়া

শরতের কবিতা

হাওয়া গুমসুম, ফোটো না কুসুম

কে তুমি বন্য, আচ্ছন্ন হয়ে এতটা, বেরিয়েছ এ নির্মম আঁধারে— এসব সময়, বড় ভালো নয়, মেঘও থমথম, দেখো রোধের ওপারে। হাওয়া গুমসুম, বাহারি কুসুম, ভুলে স্ফুটন, এবার গর্ভে ফিরে যাও ভাঙে মায়ারথ, এ অলীক শরৎ, নয় ...

হাওয়া গুমসুম, ফোটো না কুসুম
আরও