সামরিক মহড়া চলাকালে ওই এলাকায় বিদেশি জাহাজ ও বিমান প্রবেশ না করাতে বলেছে বেইজিং। বিশ্ববাণিজ্যে তাইওয়ান ও এর আশপাশের জলসীমা গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য রুট। চীনের এমন পদক্ষেপকে ‘আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন’ বলেছে তাইওয়ান।

এ ছাড়া পেলোসির সফরের প্রতিক্রিয়ায় তাইওয়ান থেকে বিভিন্ন পণ্য আমদানি নিষিদ্ধ করেছে চীন। তাইওয়ানের শতাধিক খাবারের ব্যবসার ওপর আরোপ করা হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। তাইওয়ানের স্বাধীনতাসংগ্রামে যুক্ত দুটি প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে বেইজিং। সেই সঙ্গে বেইজিংয়ে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকোলাস বার্নসকে তলব করেছে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

দক্ষিণ–পূর্ব এশিয়া সফরের অংশ হিসেবে হঠাৎ তাইওয়ান যান পেলোসি। কেননা, তাঁর সফরসূচিতে তাইপে ছিল না। যদিও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো আগে থেকেই পেলোসির তাইপে সফরের বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়েছিল। সফরকালে পেলোসি তাইপের গ্র্যান্ড হায়াত হোটেলে ওঠেন। তাঁর সফরের বিরোধিতা করে হোটেলের বাইরে চীনপন্থী লোকজন বিক্ষোভ করেছেন।

পেলোসির সফর ঘিরে তাইওয়ানের পূর্বাঞ্চলের জলসীমায় একটি যুদ্ধবিমানবাহী রণতরিসহ চারটি যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করে চীন। আকাশে চক্কর দেয় চীনা যুদ্ধবিমান। সফর শেষে আজ বুধবার তাইপে ছেড়েছেন পেলোসি। তাঁর পরের গন্তব্য দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান।

এর আগে আজ সকালে পেলোসি তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাই ইং ওয়েনের সঙ্গে বৈঠক করেন। এ সময় পেলোসি বলেন, ‘আজ আমাদের প্রতিনিধিদল তাইওয়ানে এসেছে দ্ব্যর্থহীনভাবে এটা স্পষ্ট করে দিতে যে আমরা তাইওয়ানের প্রতি আমাদের প্রতিশ্রুতি ত্যাগ করব না। আমিও এই প্রতিনিধিদলের একজন গর্বিত সদস্য। আমরা আমাদের স্থায়ী বন্ধুত্বের জন্য গর্বিত।’

তিনি বলেন, ‘এখন আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে তাইওয়ানের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সংহতি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আর আমরা আজ সেই বার্তাটিই এখানে নিয়ে এসেছি।’

গত ২৫ বছরের মধ্যে তাইওয়ান সফর করা সবচেয়ে জ্যেষ্ঠ মার্কিন রাজনীতিবিদ পেলোসি। তবে তাঁর এ সফর প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সমর্থন দেননি। তাইওয়ানকে নিজের ভূখণ্ড মনে করে বেইজিং। কিন্তু তাইওয়ানকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবেই দেখে দেশটির জনগণ। যুক্তরাষ্ট্র দীর্ঘদিন ধরে তাইওয়ানকে অর্থ ও অস্ত্র দিয়ে সহায়তা করে আসছে।

এশিয়া থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন