বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিশ্বব্যবস্থায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাব জোরদারের অঙ্গীকার করে ক্ষমতায় এসেছেন বাইডেন। তবে দুই দশকের আফগান যুদ্ধ থেকে খালি হাতে ফেরার জন্য দেশে-বিদেশে তীব্র সমালোচনার শিকার হয়েছেন তিনি। স্বভাবতই আফগান যুদ্ধ–পরবর্তী মার্কিন কৌশলের আভাস উঠে এসেছে বাইডেনের বক্তব্যে।

এ বিষয়ে জো বাইডেন বলেন, আফগান যুদ্ধের সমাপ্তির মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র কঠোর কূটনীতির এক নতুন যুগে প্রবেশ করেছে। যদি প্রয়োজন হয়, তাহলে শক্তি প্রয়োগের প্রস্তুতি নেবে যুক্তরাষ্ট্র। তবে সামরিক শক্তি প্রয়োগ সবশেষ উপায় হিসেবে বিবেচিত হবে।

বাইডেন গতকাল জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সঙ্গে বৈঠক করেন। সমন্বিতভাবে বিশ্বকে শান্তি-সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নেওয়ার জন্য বাইডেন জাতিসংঘ মহাসচিবকে যুক্তরাষ্ট্রের সম্ভাব্য সহযোগিতা-সমর্থনের ব্যাপারে আশ্বাস দেন।
জাতিসংঘ মহাসচিবের সঙ্গে সাক্ষাতের সময় সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, বিশ্বের উন্নয়ন, শান্তি, নিরাপত্তার জন্য মহামারি করোনা ও জলবায়ুর পরিবর্তন বড় হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য যুক্তরাষ্ট্র তার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী বিশ্বের পাশে থাকবে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর তিনি প্রথমবারের মতো জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিয়েছেন। এদিকে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের এবারের অধিবেশনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভাষণ দেওয়ার কথা রয়েছে চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিংয়ের।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন