ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের অবাধ চলাচল নিয়ন্ত্রণের দাবিতে ছাত্রীদের মানববন্ধন। বুধবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন প্রশাসনিক ভবনের সামনে
ছবি: প্রথম আলো

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে নারী শিক্ষার্থীদের প্রতি প্রশাসনের বৈষম্যমূলক দৃষ্টিভঙ্গি বন্ধসহ বহিরাগতদের অবাধ চলাচল নিয়ন্ত্রণের দাবি জানিয়েছেন ছাত্রীরা। বুধবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন প্রশাসনিক ভবনের সামনে মানববন্ধন করে তাঁরা এ দাবি জানান।

মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের শেখ হাসিনা, খালেদা জিয়া, প্রীতিলতা ও সুফিয়া কামাল হলের অর্ধশত ছাত্রী অংশ নেন। ছাত্রীদের অন্য দাবিগুলো হলো যৌন নিপীড়নের ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত নিশ্চিত করা, নারী শিক্ষার্থীদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ বন্ধ করা এবং পুরো ক্যাম্পাস সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় আনা।

আরও পড়ুন

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে চুরির চেষ্টার ঘটনার জেরে প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগ

মানববন্ধনে নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী ফাইজা মেহজাবিন বলেন, এক বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক নিরাপত্তা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। গত শনিবার এক ব্যক্তি সুফিয়া কামাল, খালেদা জিয়া ও শেখ হাসিনা হলে গভীর রাতে মেয়েদের রাতভর যৌন নিপীড়নমূলক কথা বলেন। এ ঘটনায় এখনো দোষী ব্যক্তিকে চিহ্নিত করা বা দৃশ্যমান কোনো ব্যবস্থা নিতে তাঁরা দেখেননি। আবাসিক হলে একের পর এক চুরি ও উত্ত্যক্তের ঘটনায় তাঁরা তাঁদের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত।

মার্কেটিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী প্রিয়া সাহা বলেন, ‘ইদানীং ক্যাম্পাসে যেসব ঘটনা ঘটছে, তা আমাদের ক্যাম্পাসের চিরাচরিত পরিবেশের বিপরীত। ওই ঘটনার পর আমরা মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। আমরা চাই, অপরাধীদের শনাক্ত করে শাস্তির আওতায় আনা হোক।’

এ বিষয়ে শেখ হাসিনা হলের প্রাধ্যক্ষ হোসনে আরা প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা ওই ঘটনার পর হলে সাতটি সিসিটিভি ক্যামেরা লাগিয়েছি। গার্ডের সংখ্যা তিন থেকে চারে উন্নীত করেছি। হলের চারপাশে লাইট লাগানো হয়েছে। ছাত্রীদের নিরাপত্তার জন্য যা কিছু করা দরকার, সব উদ্যোগ নিয়েছি।’

উপাচার্য নূরুল আলম বলেন, প্রাধ্যক্ষ কমিটিকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, যেন দ্রুততম সময়ে ব্যবস্থা নেওয়া হয়।