ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ১৯৮৫ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। নেইমারের সঙ্গে একই দিনে জন্মদিন হলেও ফুটবলীয় অর্জনে তাঁর একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী লিওনেল মেসি। পর্তুগালের মাদেইরা দ্বীপপুঞ্জে জন্ম গ্রহণ করা রোনালদো রাশিয়া বিশ্বকাপে তৃতীয়বারের মতো দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। রেকর্ড পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর বিজয়ী এই ফুটবলার অনেকের চোখেই বিশ্বসেরা। তিনবারের প্রিমিয়ার লিগ জয়ী রোনালদো দুবার জিতেছেন লা লিগা। এছাড়া চারবারের চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ী রোনালদো বিশ্ব ক্লাবকাপও জিতেছেন চারবার। একটি এফএ কাপ, দুটো লিগ কাপ ও দুবারের কোপা দেল রে জয়ী এই ফরোয়ার্ড অবশ্য নিজের সসেরা সাফল্য হিসেবে পর্তুগালের হয়ে ২০১৬ ইউরো জেতার কথাই বলেন। ২০১৫ সালেই পর্তুগালের ইতিহাসের সেরা ফুটবলার হিসেবে রোনালদোর নাম ঘোষণা করেছে দেশটির ফুটবল ফেডারেশন।

ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগে সর্বোচ্চ গোলের মালিক রোনালদো দেশের হয়েও সর্বোচ্চ গোলদাতাদের তালিকার তিনে আছেন। এক পঞ্জীকাবর্ষে সবচেয়ে বেশি আন্তর্জাতিক গোল (৩২) তাঁর। চ্যাম্পিয়নস লিগ ও ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের (২৯) সর্বোচ্চ গোলদাতাও রোনালদো। প্রথম ফুটবলার হিসেবে ম্যাচের প্রতি মিনিটে গোলের রেকর্ড করেছেন এই রিয়াল মাদ্রিদ ফরোয়ার্ড। একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে টানা সাতটি আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় (ইউরো-২০০৪,০৮,১২,১৬ ও বিশ্বকাপ-০৬,১০১৪) গোল করেছেন। প্লেমেকার হিসেবেও তিনি কম যান না, চ্যাম্পিয়নস লিগ ও ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে সতীর্থদের দিয়ে সবচেয়ে বেশি গোল করানোর রেকর্ডও পর্তুগিজ অধিনায়কের।

১৯৮৫ সালে মাদেইরার রাজধানী ফানচালে জন্ম গ্রহণ করেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ডস সান্তোস অ্যাভেইরো। মালী বাবা ও রাধুনী মায়ের ঘরের সর্বকনিষ্ঠ সন্তান রোনালদো। যুক্তরাস্ট্রের সাবেক রাস্ট্রপতি রোনাল্ড রিগ্যানের নাম থেকেই রোনালদো নামটা বেছে নিয়েছেন জোসে দিনিস ও মারিয়া ডলোরেস। শৈশবটা অভাব অনটনে কেটেছে রোনালদোর। স্থানাভাবে অ্যাভেইরো পরিবারের চার সন্তানই একই রুমে বেড়ে উঠেছে। আর ২০১৬ ও ২০১৭ সালে ফোর্বস সাময়িকীর সর্বোচ্চ আয় করা অ্যাথলেটদের তালিকার শীর্ষে ছিলেন রোনালদো।

রোনালদোর ফুটবলার হওয়ার পেছনে তাঁর বাবা-মার অবদান সবচেয়ে বেশি। পরিবারের খরচ জোগাতে পৌরসভার মালির চাকরির বাইরে স্থানীয় ক্লাব অন্দোরিনহার কিট ম্যানও ছিলেন রোনালদোর বাবা জোসে। সে সুবাদেই মাত্র ৭ বছর বয়সে আন্দোরিনহায় যোগ দেন রোনালদো। ১২ বছর বয়সে স্পোর্টিং সিপির তিন দিনের এক ট্রায়ালে যাওয়াটাই রোনালদোর জীবনের গল্পটা পালটে দেয়। মেদেইরা ছেড়ে লিসবনে স্পোর্টিংয়ের ইয়ুথ একাডেমিতে যোগ দেন ক্রিস্টিয়ানো। ১৪ বছর বয়সেই ফুটবল ক্যারিয়ার নিয়ে নিঃসন্দেহ হয়ে যাওয়ায় মায়ের সঙ্গে কথা বলে লেখাপড়ায় ইস্তফা দেন। পরের বছরই শারীরিক সমস্যায় ফুটবল থেকে বিদায় নেওয়ার উপক্রম হয়েছিল তাঁর। হৃদস্পন্দনের সমস্যায় ফুটবল ক্যারিয়ার নিয়ে শঙ্কায় পড়েছিলেন রোনালদো। অস্ত্রোপচার করে সে শঙ্কা কাটিয়ে আর কখনো পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি রোনালদোকে।
পেশাদার ক্যারিয়ারের অভিষেকে জোড়া গোল করা রোনালদো ক্লাব ফুটবলে স্পোর্টিং সিপির পর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও রিয়াল মাদ্রিদে খেলেছেন। আর এ যাত্রায় গড়েছেন অসংখ্য রেকর্ড।

রিয়াল মাদ্রিদীর ইতিহাসের সর্বোচ্চ গোলদাতা এখন রোনালদো। মাত্র ৯ মৌসুম খেলেই লা লিগায় রেকর্ড ৩৩টি হ্যাটট্রিক তাঁর। এতেই লা লিগায় দ্রুততম দেড় শ, দুই শ ও তিন শ গোলের রেকর্ডটি এখন রোনালদোর দখলে। একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে টানা ৬ মৌসুমে কমপক্ষে ৫০ গোল তাঁর। টানা ৭ পঞ্জীকাবর্ষে ৫০ গোল করার রেকর্ডটিও শুধুই রোনালদোর। মেসির সঙ্গে যুগ্মভাবে ফিফার বর্ষসেরা দলে এগারোবার জায়গা পেয়েছেন, তবে রোনালদোই একমাত্র খেলোয়াড় যিনি দুই ক্যাটাগরিতে ফিফার দলে নাম লিখিয়েছেন।

ইউরোপিয়ান ফুটবলে রোনালদোর আধিপত্য আরও ভয়ংকর। মোট ১২বার উয়েফার বর্ষসেরা দলে জায়গা পেয়েছেন রোনালদো। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মেসি যা করতে পেরেছেন মাত্র ৯ বার। এর পেছনে চ্যাম্পিয়নস লিগে রোনালদোর অর্জনই ভূমিকা রেখেছে। ইউনাইটেড ও রিয়ালের হয়ে চারবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার পথে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে এ প্রতিযোগিতায় ১০০ গোল করেছেন। কোনো নির্দিষ্ট ক্লাবের হয়ে ১০০ গোল করা প্রথম ফুটবলারও রোনালদো। গ্রুপ পর্বের সব ম্যাচে গোল করার অনন্য অর্জনটিও শুধুই তাঁর।

ব্যক্তিগত জীবনে চার সন্তানের জনক রোনালদো। সাত বছরের রোনালদো জুনিয়র ২০১৭ সালের জুনে এক বোন ও এক ভাই পেয়েছে সঙ্গী হিসেবে। আর বছরের শেষভাগে বান্ধবী জর্জিনা রদ্রিগেজের গর্ভে রোনালদোর দ্বিতীয় কন্যার জন্ম হয়েছে।

 

মেসি-নেইমার সোনা জিতেছেন, অলিম্পিকে রোনালদো কী করেছেন?

মেসি আর্জেন্টিনা আর নেইমার ব্রাজিলকে অলিম্পিক সোনা জিতিয়েছেন, রোনালদো পর্তুগালের হয়ে খেলেছেন কোনো অলিম্পিকে? খেললে কী করেছেন?

অলিম্পিক সোনার স্বাদ পেয়েছেন তারা

বার্সা-জুভেন্টাস ম্যাচ শঙ্কায় ফেলে দিল করোনা

মেসির বার্সেলোনা আর রোনালদোর জুভেন্টাসের প্রীতি ম্যাচ হওয়ার কথা ছিল ৮ আগস্ট। কিন্তু তার আগে জুভেন্টাসের সব খেলোয়াড়কে যেতে হলো কোয়ারেন্টিনে।

মেসি-রোনালদর দেখা হচ্ছে না?

রোনালদোর সতীর্থকে প্রশ্ন, রোনালদোর গায়ের গন্ধ কেমন?

একটা নতুন ক্লাবে গেছেন, সেখানে প্রথম সংবাদ সম্মেলন তাঁর। কী ধরনের প্রশ্নই-বা হতে পারে? তিনি জাতীয় দলে রোনালদোর সঙ্গে আর ক্লাব ফুটবলে মেসির বিপক্ষে খেলেছেন বলে রোনালদো-মেসির তুলনা নিয়েও হয়তো প্রশ্ন ...

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো

আবারও মুখোমুখি হচ্ছেন মেসি–রোনালদো?

নতুন মৌসুম শুরুর আগে হোয়ান গাম্পার প্রদর্শনী ট্রফির ম্যাচ আয়োজন করে থাকে বার্সেলোনা। ১৯৬৬ সাল থেকে এ প্রথা ধরে রেখেছে কাতালান ক্লাবটি। ২০০৫ গাম্পার ট্রফিতে জুভেন্টাসের মুখোমুখি হয়ে টাইব্রেকারে হারের ...

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও লিওনেল মেসি

ইউরোপিয়ান দলবদল

রোনালদো-ইকার্দি অদলবদল?

ইউরোপীয় ফুটবলে গ্রীষ্মকালীন দলবদল চলছে। ইউরোপের প্রধান লিগগুলোর দলবদল চলবে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত। এ পর্যন্ত কোন কোন খেলোয়াড় দল পরিবর্তন করলেন? কারা এখনো করেননি, কিন্তু করতে পারেন? লম্বা তালিকাটা একনজরে ...

জুভেন্টাস ছাড়বেন রোনালদো?

ফুটবল

মেসি-রোনালদো যদি ১৯৮৬ বিশ্বকাপ খেলত...

বর্তমান ফুটবল বিশ্ব শাসন করছেন মেসি-রোনালদো-নেইমাররা। ১৯৮৬ বিশ্বকাপে খেললে কেমন হতো তাঁদের চেহারা? উত্তর মিলবে ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপের ফেসবুক পেজ।

মেসি-রোনালদো যদি ১৯৮৬ বিশ্বকাপ খেলত...

কোপা আমেরিকা

রোনালদোর দিনেই অতৃপ্তি ঘোচালেন মেসি

ক্লাব ও ব্যক্তিগত ক্যারিয়ারে সব কিছু জিতলেও এক আন্তর্জাতিক ফুটবলে এসেই রিক্ত হাতে ফিরে যেতে হতো দুজনকে। ২০১৬ সালে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর আক্ষেপটা ঘুচলেও ফুটবলের আরেক রাজপুত্র লিওনেল মেসির অতৃপ্তিটা ...

মেসি-রোনালদো।

ইউরো ২০২০

শিক নন, গোল্ডেন বুটের দৌড়ে এখনো রোনালদোই এগিয়ে

ডেনমার্কের বিপক্ষে গোল করে এই ইউরোতে নিজের গোলসংখ্যা পাঁচে নিয়ে গেছেন চেক স্ট্রাইকার পাত্রিক শিক। গোল্ডেন বুটের দৌড়ে কি তবে তিনিই এগিয়ে? বাদ সাধছেন রোনালদো

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

ইনস্টাগ্রামে সবচেয়ে ধনী ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো

ইউরোয় কিছুদিন আগে সংবাদ সম্মেলনে টেবিল থেকে কোকাকোলার বোতল সরিয়ে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবসায় বড় লোকসান ডেকে আনেন রোনালদো। মাত্র আধা ঘণ্টার মধ্যে কোকাকোলার ব্র্যান্ড মূল্য ৪০০ কোটি ডলার কমে যায়। এর অন্যতম ...

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

রোনালদো কি শেষ ছবিই এঁকে গেলেন

তখন সদ্য উনিশে পা রাখা টগবগে যুবক। মনের ভেতর তুলতুলে আবেগ। একটু ঝাঁকুনিতে চোখের দুই কূল ছাপিয়ে যায়। লিসবনে সেদিন লুইস ফিগো, রুই কস্তাদের মতো পোড় খাওয়া চোখগুলোও ভিজেছিল, সেখানে উনিশ বছরের ছেলেটির চোখে ...

রোনালদো কি শেষ ছবিই এঁকে গেলেন
আরও